১০:৫২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যেনতেন নির্বাচনে রাজনৈতিক সমাধান নেই

Reporter Name
  • No Update : ১০:৫২:৪৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ নভেম্বর ২০২৩
  • / 1138

নৃশংসতার শিকার হয়ে যাঁরা প্রাণ হারান, তাঁদের মৃত্যুতে কষ্ট পায় না, এমন মানুষ বিরল। সব সহিংসতাই তাই নিন্দনীয় এবং সবারই তার বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার কথা। গত ২৮ অক্টোবরের রাজনৈতিক সহিংসতা এবং তার প্রতিক্রিয়ায় আরও সহিংসতার ধারাবাহিক ঘটনাক্রমে তাই স্বাভাবিকভাবেই আমরা সবাই উদ্বিগ্ন ও উৎকণ্ঠিত।

কিন্তু গাজায় দখলদার ইসরায়েলিদের নৃশংসতার সঙ্গে ঢাকার ২৮ অক্টোবরের রাজনৈতিক সহিংসতার যাঁরা তুলনা টেনেছেন, তাঁরা ফিলিস্তিনিদের মুক্তিসংগ্রামের সীমাহীন ত্যাগ এবং চলমান গণহত্যার প্রতি যে অবিচার করেছেন, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

এ রকম চরম অসম তুলনার পটভূমিতে আমরা কি বোকার মতো জানতে চাইতে পারি, ঢাকার ঘটনায় কোন পক্ষকে কার সঙ্গে তুলনা করা হলো? মারমুখী পুলিশের যে নিষ্ঠুরতা এবং তাদের পাশাপাশি ‘শান্তি’র লাঠিধারীদের হামলা, হতাহতের পরিসংখ্যান, গ্রেপ্তার এবং গণহারে মামলার খবর ও ছবি দেখে ধন্দে পড়ে যাই। দুর্ভাবনা তৈরি হয়, তাহলে কি প্রতিপক্ষ নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত এগুলো থামবে না?

দুই.
২৮ অক্টোবর ঢাকায় কী ঘটেছিল, তা নিয়ে সরকারি ভাষ্য ও বিএনপির ভাষ্য সম্পূর্ণ আলাদা এবং বিপরীতমুখী। নয়াপল্টন ও তার আশপাশে সংঘাত যখন চলছিল, তখন মূলধারার সংবাদমাধ্যমে সরাসরি না হলেও অল্প সময়ের ব্যবধানেই কিছু বিবরণ পাওয়া যাচ্ছিল। ইন্টারনেট–সেবা বিঘ্নিত হলেও নানাভাবে সেসব ঘটনার ছবি ও ভিডিও সবার কাছে পৌঁছে গেছে, বিশেষত সামাজিক যোগাযোগ প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে। এসব ছবি দেখে প্রশ্ন ওঠে, পুলিশ কি শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষায় যথাযথ ভূমিকা রেখেছে?

তাদের কৌশল কী কাজ করেছে? শান্তি বজায় রেখে সমাবেশ করতে দেওয়ার ব্যবস্থা ও প্রস্তুতি থাকলে এত বড় একটি সমাবেশে এক প্রান্তের একটি হাঙ্গামা নিয়ন্ত্রণের বদলে পুরো সমাবেশ কেন ভেঙে দিতে হলো? শক্তি প্রয়োগে জনসমাগম ভাঙতে হলে তা যে কখনোই ভালো হয় না, তার ভূরি ভূরি নজির থাকা সত্ত্বেও সেই পথ অনুসরণ মোটেও স্বাভাবিক নয়।

বিএনপির সমাবেশ পণ্ড হওয়ার পটভূমিতে দলটি ও তার সহযোগীরা হরতাল ও অবরোধের যেসব কর্মসূচি দিয়েছে, সেগুলো মোকাবিলায়ও পুলিশকে একটু বেশিই মারমুখী দেখা যাচ্ছে। জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদও বিবৃতি দিয়ে পুলিশের শক্তি প্রয়োগে আইনের মূলনীতি অনুসরণের প্রয়োজনীয়তার কথা বলেছে।

জাতিসংঘ সংস্থাটির বিবৃতিতে প্রধান বিচারপতির বাসভবনে হামলায় এমন কিছু ব্যক্তির জড়িত থাকার কথা বলা হয়েছে, যারা ক্ষমতাসীন দলের সমর্থক। সেদিনের ঘটনার বিবরণ যা প্রকাশিত হয়েছে, তাতে অপরাধ সংঘটিত হয়েছে প্রধান বিচারপতির বাসভবন, ফকিরাপুল, পুলিশ হাসপাতালসহ বেশ কয়েকটি জায়গায়। কিন্তু ‘ক্রাইম সিন’ হিসেবে অন্য কোনো স্থান সংরক্ষণ না করে শুধু বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়কে বেছে নেওয়ায় তদন্তের নিরপেক্ষতা কি প্রশ্নবিদ্ধ হয় না?

Tag : Bangladesh Diplomat, bd diplomat

Please Share This Post in Your Social Media

Write Your Comment

About Author Information

Bangladesh Diplomat | বাংলাদেশ ডিপ্লোম্যাট

Bangladesh Diplomat | বাংলাদেশ ডিপ্লোম্যাট | A Popular News Portal Of Bangladesh.

যেনতেন নির্বাচনে রাজনৈতিক সমাধান নেই

No Update : ১০:৫২:৪৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ নভেম্বর ২০২৩

নৃশংসতার শিকার হয়ে যাঁরা প্রাণ হারান, তাঁদের মৃত্যুতে কষ্ট পায় না, এমন মানুষ বিরল। সব সহিংসতাই তাই নিন্দনীয় এবং সবারই তার বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার কথা। গত ২৮ অক্টোবরের রাজনৈতিক সহিংসতা এবং তার প্রতিক্রিয়ায় আরও সহিংসতার ধারাবাহিক ঘটনাক্রমে তাই স্বাভাবিকভাবেই আমরা সবাই উদ্বিগ্ন ও উৎকণ্ঠিত।

কিন্তু গাজায় দখলদার ইসরায়েলিদের নৃশংসতার সঙ্গে ঢাকার ২৮ অক্টোবরের রাজনৈতিক সহিংসতার যাঁরা তুলনা টেনেছেন, তাঁরা ফিলিস্তিনিদের মুক্তিসংগ্রামের সীমাহীন ত্যাগ এবং চলমান গণহত্যার প্রতি যে অবিচার করেছেন, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

এ রকম চরম অসম তুলনার পটভূমিতে আমরা কি বোকার মতো জানতে চাইতে পারি, ঢাকার ঘটনায় কোন পক্ষকে কার সঙ্গে তুলনা করা হলো? মারমুখী পুলিশের যে নিষ্ঠুরতা এবং তাদের পাশাপাশি ‘শান্তি’র লাঠিধারীদের হামলা, হতাহতের পরিসংখ্যান, গ্রেপ্তার এবং গণহারে মামলার খবর ও ছবি দেখে ধন্দে পড়ে যাই। দুর্ভাবনা তৈরি হয়, তাহলে কি প্রতিপক্ষ নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত এগুলো থামবে না?

দুই.
২৮ অক্টোবর ঢাকায় কী ঘটেছিল, তা নিয়ে সরকারি ভাষ্য ও বিএনপির ভাষ্য সম্পূর্ণ আলাদা এবং বিপরীতমুখী। নয়াপল্টন ও তার আশপাশে সংঘাত যখন চলছিল, তখন মূলধারার সংবাদমাধ্যমে সরাসরি না হলেও অল্প সময়ের ব্যবধানেই কিছু বিবরণ পাওয়া যাচ্ছিল। ইন্টারনেট–সেবা বিঘ্নিত হলেও নানাভাবে সেসব ঘটনার ছবি ও ভিডিও সবার কাছে পৌঁছে গেছে, বিশেষত সামাজিক যোগাযোগ প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে। এসব ছবি দেখে প্রশ্ন ওঠে, পুলিশ কি শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষায় যথাযথ ভূমিকা রেখেছে?

তাদের কৌশল কী কাজ করেছে? শান্তি বজায় রেখে সমাবেশ করতে দেওয়ার ব্যবস্থা ও প্রস্তুতি থাকলে এত বড় একটি সমাবেশে এক প্রান্তের একটি হাঙ্গামা নিয়ন্ত্রণের বদলে পুরো সমাবেশ কেন ভেঙে দিতে হলো? শক্তি প্রয়োগে জনসমাগম ভাঙতে হলে তা যে কখনোই ভালো হয় না, তার ভূরি ভূরি নজির থাকা সত্ত্বেও সেই পথ অনুসরণ মোটেও স্বাভাবিক নয়।

বিএনপির সমাবেশ পণ্ড হওয়ার পটভূমিতে দলটি ও তার সহযোগীরা হরতাল ও অবরোধের যেসব কর্মসূচি দিয়েছে, সেগুলো মোকাবিলায়ও পুলিশকে একটু বেশিই মারমুখী দেখা যাচ্ছে। জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদও বিবৃতি দিয়ে পুলিশের শক্তি প্রয়োগে আইনের মূলনীতি অনুসরণের প্রয়োজনীয়তার কথা বলেছে।

জাতিসংঘ সংস্থাটির বিবৃতিতে প্রধান বিচারপতির বাসভবনে হামলায় এমন কিছু ব্যক্তির জড়িত থাকার কথা বলা হয়েছে, যারা ক্ষমতাসীন দলের সমর্থক। সেদিনের ঘটনার বিবরণ যা প্রকাশিত হয়েছে, তাতে অপরাধ সংঘটিত হয়েছে প্রধান বিচারপতির বাসভবন, ফকিরাপুল, পুলিশ হাসপাতালসহ বেশ কয়েকটি জায়গায়। কিন্তু ‘ক্রাইম সিন’ হিসেবে অন্য কোনো স্থান সংরক্ষণ না করে শুধু বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়কে বেছে নেওয়ায় তদন্তের নিরপেক্ষতা কি প্রশ্নবিদ্ধ হয় না?